কিভাবে সহজে চাকরি পাওয়া যায়- কিছু অভিনব উপায়

টাকা ছাড়া যে কারোরেই চলে না –সে কথা সবারেই জানা। একটা সময় ছিল- একটা মোটামুটি টাকা রোজগার করতে পারলেই মানুষ খুশী থাকতো। এখন কিন্তু বেশীরভাগ মানুষেই খুশী হয় না যতক্ষণ না সরকারি চাকরি পাচ্ছে।

অনেকেই আছেন যারা প্রাইভেট কোম্পানিতে মোটামুটি ভালো মাইনেতে ভালোই চাকরি করছেন। কিন্তু তারা খুশী নন। এমনটা কেন? তাদেরকে প্রশ্ন করাতে উত্তর এল এইরকম- এই চাকরি বেশিদিন করা যাবে না। এখানে কোন জীবন নেই। কিন্তু টাকা ছাড়া চলবে না, তাই বাধ্য হয়ে চাকরিটা করতেই হচ্ছে”।

পরবর্তী প্রশ্ন ছিল- “ তাহলে, কি করার কথা ভাবছেন?” উত্তর পেলাম-“ সরকারি চাকরি। সেখানে এতো পরিশ্রম করতে হয় না। পরিবার কে সময় দেওয়া যায়।“ কিন্তু সরকারি কাজ কজনেই আর পায়? ভেকেন্সি তো খুব কম বেরোই।

কি করে ভেকেন্সি বেরোবে বলুন তো? যে একবার সরকারি কোম্পানি তে ঢোকে, সে আর রিটায়ারমেন্ট এর আগে কোম্পানি থেকে বেরোয় না। অন্যদিকে প্রতিবছর লাখ লাখ ছেলে গ্রাজুয়েট কমপ্লিট করে বা এইচ এস পাস করে বেরোচ্ছে। সত্যিই, নতুনদের অবস্থা খুবই সংকটজনক।

তবে সবার অবস্থা সংকটজনক নয়। যারা নতুন কিছু ভাবে, যাদের মস্তিষ্কে অভিনব আইডিয়া আসতে থাকে তাদের কে ভালো চাকরি থেকে কে আটকায়?

এখানে সরকারি কিংবা বেসরকারি সব ধরনের কর্মক্ষেত্র নিয়েই আলোচনা করবো।

এই পোস্টটি কিন্তু সবার জন্য। মাধ্যমিক পাস করা থেকে শুরু করে পি এইচ ডি করা লোকজন সবারেই নীচে দেওয়া টিপসগুলো আশা করি উপকারে আসবে। আমরা এখানে আলোচনা করবঃ

  • আপনি কি করলে গ্রাজুয়েট হওয়ার সাথে সাথে চাকরি সুনিশ্চিত করবেন?
  • মাধ্যমিক পাস করে পরই কি করে চাকরি পেতে পারেন?
  • কিভাবে সহজে সরকারি কাজ পাবেন?
  • কিভাবে প্রাইভেট কোম্পানিতে কাজ পাবেন?

সবার প্রথমে নিজেকে বিশ্লেষণ করুন

সবার প্রথমে নিজেকে বিশ্লেষণ করে জানুনঃ

  • চাকরি নাকি ব্যবসা করবেন।
  • চাকরি করলে সরকারি কোম্পানিতে নাকি বেসরকারি কোম্পানিতে করবেন।

আপনি কি নিজে ভাবতে পারছেন না যে কি করবেন- চাকরি নাকি ব্যবসা? যদি নিজে মনস্থির করতে না পারছেন তাহলে নীচের লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন যা আশা করি আপনাকে এই ডিসিশেন নিতে সাহায্য করবেঃ

https://bengalimotivation.com/%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a6%bf-%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a6%bf-%e0%a6%ac%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%ac%e0%a6%b8%e0%a6%be/

গ্রাজুয়েট হওয়ার সাথে সাথে চাকরি সুনিশ্চিত করুন

গ্রাজুয়েট হওয়ার সাথে সাথে জব সুনিশ্চিত করুন নিম্নলিখিত উপায়েঃ

১। নিজেকে এনালিসিস করুন

ফার্স্ট ইয়ার থেকেই ঠিক করে ফেলুন গ্রাজুয়েট কমপ্লিট করার পর কি করবেন। আপনার ভালো লাগা কাজগুলোকে খুঁজুন।

যদি আপনি আপনার এখনকার টিচারের মতোই হতে চান, তাহলে উনি কিভাবে পড়াচ্চেন তা লক্ষ্য করুন। ক্লাসের নোটগুলো ভালো করে রাখুন যাতে ভবিষ্যতে আপনি সেগুলো দেখতে পারেন।

যদি আপনি মেডিক্যাল লাইনে পড়ছেন আর ডাক্তার হতে চান, তাহলে তো আপনি অনেক কিছুই করতে পারেন। আপনি নিজস্ব চেম্বার খুলতে পারেন, সরকারি জব কিংবা বেসরকারি জবও করতে পারেন।

২। জ্ঞানে ভরপুর ও কাজে পারদর্শী হন- আপনার চাকরি কেউ আটকাতে পারবে না

যে বিষয় গুলো আপনার ভালো লাগে, আপনি নিশ্চয় সেইসব বিষয়ের ওপরেই কিছু করতে চান যাতে সেই জ্ঞান কাজে লাগাতে পারেন।

আর তাইতো নিজেকে ভবিষ্যতের চেয়ারে বসিয়ে এখন থেকে সেই কাজে পারদর্শী হন। কাজ ভালো জানলে,আর সাথে থিওরেটিকেল জ্ঞান থাকলে আপনার চাকরি সুনিশ্চিত।

৩। নিজেই নিজের ইন্টারভিউ নিন

আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেই নিজের সাথে ইংরেজি তে ইন্টারভিউ নিন যাতে করে ভবিষ্যতে আপনি ইন্টারভিউ দিতে ভয় না পান।

মাধ্যমিক পাস করে কি করে চাকরি পাবেন?

আপনি কি শুধু মাধ্যমিক পাস করেছেন? আর চাকরিটা এখনি চাই? বাড়ীতে স্বচ্ছলতার অভাব? চিন্তা করবেন না। নিম্নলিখিত উপায়গুলো ফলো করুনঃ

১। বায়ো ডাটা

একটা বায়ো ডাটা বানিয়ে রাখুন। সেখানে নিজের নাম, হবি, ভালো গুনগুলো লিখে রাখুন। আর লিখুন আপনি কি কি কাজ জানেন।

২। কর্ম সংস্থানের বিভিন্ন খবরের কাগজগুলো পড়তে থাকুন

কোথায় কি ভেকেন্সি আছে, প্রত্যহ তার খোঁজ খবর অবশ্যই নিন। কোন ফোন নাম্বার দেওয়া থাকলে তাতে কল করুন। আর জিগ্যেস করুন আপনি কবে যাবেন ইন্টারভিউ দিতে।

৩। প্রথমে বেসরকারি কোম্পানিতে যা চাকরি পাবেন তাই করুন

হয়তো আপনার সরকারি চাকরি করার খুব ইচ্ছে কিন্তু যেহেতু আর্থিক টান আছে তাই যে কোম্পানিতে আগে চাকরি পাবেন সেই কোম্পানিতেই চাকরি করুন। কাজটা আগে ভালো করে শিখুন।

কাজটা এতোটাই ভালো করে শিখুন যে সরকারি চাকরির রিটিন পরীক্ষা ক্লিয়ার করলেই যেন আপনার চাকরিটা হয়ে যায়। কারন আপনি নিশ্চিত যে ইন্টারভিউএ কাজ সম্পর্কে যাই জিগ্যেস করুক না কেন আপনি সব ঠিকঠাক উত্তর দিতে পারবেন।  

চাকরি গেরেন্টেড
চাকরি নিশ্চিত

কিভাবে সহজে সরকারি চাকরি পাবেন?

১। বায়ো ডাটা বানান

খুব সুন্দরভাবে একটা বায়ো ডাটা বানান। আপনার গুনগুলো উল্লেখ করুন। প্রয়োজনে সিভি এক্সপার্টদের সাহায্য নিতে পারেন কিংবা অভিজ্ঞদের থেকে সাহায্য নিন।

২। নিজেকে আপডেট রাখুন

নিজেকে এতোটাই আপডেট রাখুন যেন গতকাল দেশে কি উল্লেখযোগ্য ঘটনা ঘটেছে তা আপনি আজ বলতে পারেন। সরকারি চাকরি পাওয়ার জন্য এটা খুবই দরকার।

৩। খবরের কাগজ পড়ুন

প্রত্যহ নিয়ম করে খবরের কাগজ পড়ুন। এতে আপনার ইংরেজি যেমন জোরালো হবে তেমনি আপনার দেশ সম্পর্কে জ্ঞান বৃদ্ধি হবে।

৪। কোন প্রতিষ্ঠানে যোগ দিন যেখানে সরকারি চাকরির প্রিপারেশেন করানো হয়

যদি আপনি একা একা পড়তে গিয়ে মনোযোগ হারিয়ে ফেলছেন, তাহলে কোন প্রতিষ্ঠানে যোগ দিন যেখানে সরকারি চাকরির প্রিপারেশেন করানো হয়। এমন প্রতিষ্ঠানে যোগ দিন যেখানে প্রতি সপ্তাহে টেস্ট নেওয়া হয়।

টেস্টগুলো কোনোভাবেই মিস করবেন না। টেস্টগুলো দেওয়ার ফলে আপনি নিজে নিজের মুল্যায়ন করতে পারবেন।

৫। ইন্টারভিউ দিতে থাকুন

ইন্টারভিউ দিতে থাকুন। প্রথম বা দ্বিতীয় ইন্টারভিউয়ে আপনি যদি পাস করতে না পারেন চিন্তা করবেন না।

সরকারি পরীক্ষায় খুব কম লোকেই প্রথম বারেই চাকরি পায়। তাই চিন্তা না করে, পরীক্ষাগুলোতে বসতে থাকুন।

আপনি কি কোন ছোট খাটো চাকরি করেন? আর সেই চাকরি করতে করতে প্রিপারেশেন নেন? সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে অনেক পরিশ্রম করতে হবে। আর আপনারা পারলে অবশ্যই ৪ নাম্বার স্টেপটা ফলো করবেন।

ইন্টারভিউ দেওয়ার কৌশল জানতে নীচের লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন-

https://bengalimotivation.com/%e0%a6%87%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%ad%e0%a6%bf%e0%a6%89-%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%93%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%95%e0%a7%8c%e0%a6%b6%e0%a6%b2/

৬। গ্রুপ ডিসকাশেন করুন

আপনি কি হোস্টেলে থাকেন? তাহলে দুই বন্ধু মিলে গ্রুপ ডিস্কাশেন প্র্যাকটিস করুন। অনেক সরকারি পরীক্ষাতেও গ্রুপ ডিস্কাশেনে বসতে হয়।

ইংরেজি বলা বা লিখার দিকে বিশেষ নজর দিন।

৭। ধৈর্য ধরুন

আরামপ্রিয় চাকরি খুঁজছেন? অথচ কষ্ট করবেন না? তাই তো ধৈর্য ধরুন। হাল ছাড়বেন না। মনের মধ্যে ভাবুন যে আপনাকে পেতেই হবে। সরকারি চাকরি পাওয়ার জন্য আপনাকে যদি এক বছর ঘরে বসে, কোচিং এ গিয়ে প্রিপারেশেন নিতে হয়, আপনি তাও নেবেন।এইভাবে মন কে তৈরি করুন।

৮। হতাশ হবেন না- চাকরি অবশ্যই পাবেন

কোন অবস্থাতেই হতাশ হবেন না, মন খারাপ করবেন না। এমন অনেকজনকে দেখেছি ৫ বার ট্রায় করার পরে সফল হয়েছে। মনের জোর যদি থাকে কেউ আপনাকে আপনার পাওনা থেকে বঞ্চিত করতে পারবে না।

৯। প্রিপারেশেন অব্যাহত রাখুন- ভালো চাকরি পেতে চাইলে

প্রথমবারে রিটিন টেস্টও ক্লিয়ার করতে পারেন নি? আর পড়াতে মন বসাতে পারছেন না। এই ভুলটা কিছুতেই করবেন না।

প্রথমবারের পরীক্ষা থেকে কিছু শিখুন। আর তারপরে জোর কদমে মনে পজিটিভ চিন্তা নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যান।

কিভাবে বেসরকারি চাকরি পাবেন

ফ্রেশারদের জন্য-

১। প্রিয় বিষয় গুলো ঠিক করুন

কোন বিষয় গুলো আপনার ভালো লাগে, তা খুঁজে বের করুন। কোন বিষয় গুলোকে আপনি হৃদয় থেকে ভালোবাসেন, যা ঘন্টার পর ঘন্টা পড়লেও আপনি ক্লান্ত হন না, তা খুঁজে বার করুন।

সেইসব প্রিয় বিষয়গুলো বায়োডাটার মধ্যে উল্লেখ করুন।  

২। ওই বিষয় গুলোতে এক্সপার্ট হন -সহজে চাকরি পাওয়ার জন্য

সেইসব বিষয়ে আপনার কনসেপ্ট যেন ক্লিয়ার থাকে। ইন্টারভিউয়ার যাই জিগ্যেস করুক না কেন আপনি যেন ১০০% নিশ্চিত থাকেন যে আপনি পারবেন।

৩। বায়োডাটা রেডি রাখুন- চাকরি এর ইন্টারভিউ কল যে কোন সময়ে আসতে পারে

বায়ো ডাটা সবসময় আপডেট রাখুন। একটা ফাইল করুন- চাকরির জন্য। সেই ফাইলে সব সার্টিফিকেট,মার্ক শীটগুলো গুছিয়ে রাখুন। ওই সব ডোকুমেন্টগুলোর ফোটো কপিও রাখুন।  

৪। ইন্ট্রোডাকশেন দিতে শিখুন- সহজে চাকরি পাওয়ার জন্য

বার বার অভ্যেস করুন ইন্ট্রোডাকশেন দেওয়ার। নিজেই আয়নার সামনে প্র্যাকটিস করুন আর লক্ষ্য করুন যে কোন জড়তা আসছে কিনা। যতক্ষণ না অবধি সব জড়তা দূর হচ্ছে, এই প্রোসেস চালিয়ে যান।

৫। আত্মবিশ্বাস বাড়ান- চাকরি আপনি অবশ্যই পাবেন

আপনার চোখে মুখে আত্মবিশাসের ঢেউ যেন খেলা করে। ইন্টারভিউয়ার আপনাকে দেখেই যেন বুঝে যায় যে আপনি খুব তাড়াতাড়িই কাজ শিখে নিতে পারবেন।

আত্মবিশ্বাস -প্রথম স্টেপ
আত্মবিশ্বাস

৬। চাকরি পেতে হলে ইংরেজিতে এক্সপার্ট হন

যে ধরনের চাকরিই করুন না কেন, ইংরেজিতে এক্সপার্ট হওয়াটা খুবই জরুরী। কিভাবে ইংরেজি শিখবেন তা জানতে নীচের লিঙ্কটিতে ক্লিক করুনঃ

https://bengalimotivation.com/%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%ac%e0%a7%87-%e0%a6%87%e0%a6%82%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%9c%e0%a6%bf-%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%b7%e0%a6%be-%e0%a6%b6%e0%a6%bf%e0%a6%96%e0%a6%ac%e0%a7%87/
ইংরেজি ভাষা শেখার উপায়

অভিজ্ঞদের জন্য

আর যারা এক্সপেরিয়েন্সড তাদের জন্য বলবো- আপনারা কাজে ভালো পারদর্শী হন। যদি আপনি অফিসে বেশ কয়েকটা প্রোজেক্ট করেছেন- তাহলে আপনি ওইসব প্রোজেক্ট এ কি কি করেছেন এবং কিভাবে করেছেন তা যেন বলতে পারেন।

অভিজ্ঞ হলে ইন্টারভিউ এর ভয় নিশ্চয় আপনার কেটে গেছে। তাহলে মনোযোগ দিন পুরানো কোম্পানিতে করা কাজগুলোর দিকে। যে কাজ করেন সেই কাজ সম্পর্কে অগাধ জ্ঞান যেন আপনার থাকে।

ওপরে উল্লেখ করা স্টেপ্স গুলো ফলো করে মনের মধ্যে আত্মবিশ্বাস আর পরিশ্রমের বীজ বপন করে এগিয়ে যান সামনের দিকে। সহজেই চাকরি পেয়ে যাবেন।

চাকরি পাওয়ার পরে পেছনে ফিরে দেখবেন যে আপনার সাথে ছিল- কিভাবে সহজে চাকরি পাওয়া যায় তার টিপস আর বেঙ্গলি মোটিভেশেন সাইটটি। তখন পরিশ্রম কে আর পরিশ্রম মনে হবে না, যে কোন কাজই আপনার কাছে হয়ে উঠবে খুবই সহজ।

সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন, সবাইকে ভালো রাখুন। চলুন, সবাই মিলে একসাথে এক সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলি। এই পৃথিবীর প্রতিটি কোনা ভরে উঠুক ঈশ্বরের আশীর্বাদে!  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাম্প্রতিক পোস্ট