কি নিয়ে লিখবো- কিছু অসাধারন আইডিয়া

লিখতে তো খুবই ভালোবাসেন? প্রথম প্রথম মাইক্রোসফট ওয়ার্ড খুললেই মস্তিষ্কে অসংখ্য শব্দ খেলা করতো, তাই তো? প্রচুর লিখেছেন। অনেক ডাইরিও ভরিয়ে দিয়েছেন। তাই কি ভাবছেন যে লিখাটাকেই পেশা করবেন? কিন্তু করতে গিয়ে নতুন এক সমস্যা-‘ কি নিয়ে লিখবো’ তা ভাবতেই অনেক সময় লেগে যাচ্ছে।

কি নিয়ে লিখবো আমিও ভেবে পাই না। আমার সাইটের প্রথম উদ্দেশ্য মানুষকে মোটিভেট করা। মোটিভেট তো অনেক ভাবেই করা যায়। কিন্তু আমি কিভাবে মোটিভেট করবো? ভাবতে ভাবতে দেখলাম যে এর জন্য আমাকে আগে খুঁজে বার করতে হবে মানুষের সমস্যা গুলো কি কি।

সমস্যাগুলো জানতে পারলে তার সমাধান নিয়ে লিখাই আমার একমাত্র উদ্দ্যেশ্য। মানুষের কাছে তালা দেওয়া বিভিন্ন ঘরের চাবি পৌঁছে দেওয়াই আমার সাইটের প্রথম উদ্দ্যেশ্য।

আমার সাইটের উদ্দ্যেশ্য মানুষের ভারচুয়েল মলম হওয়া। জে ব্যাক্তি হতাশায় ভুগছে, সেই ব্যাক্তি যেন “হতাশা দূর করার উপায়” পোস্ট টা পড়লে হতাশা সাথে সাথে দূর করতে পারে।

আর এই পোস্টে “কি নিয়ে লিখবো” সমস্যার সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করবো। ভালো লিখতে গেলে সর্ব প্রথম আপনাকে জানতে হবে নীচের জিনিষগুলো-

১। লিখা কি আপনার পেশা, তাহলে টপিক নিয়ে স্পেসিফিক থাকুন

আপনি কেন লিখেন? ভালো লাগে বলে লিখেন? নাকি এই লিখার পিছনে আপনার কোন উদ্দেশ্য আছে? ইনকাম করাই কি আপনার প্রথম উদ্দ্যেশ্য?

ইনকাম করতে গেলে সবার প্রথমে আপনার সাইটে আপনি কি ধরনের লিখা লিখবেন তা ফিক্স করুন। অর্থাৎ আপনি কি রাজনীতির খবর নিয়ে লিখবেন, নাকি মোটিভেশেন  বা অন্য কিছু?

আপনি কি প্রচুর ঘুরে বেড়ান? বিভিন্ন দেশ, বিভিন্ন রাজ্য এর টুরিস্ট স্পটস গুলোর বিবরণ লিখতে চান?

আপনার কি মেক আপ, রুপ চর্চা নিয়ে প্রচুর জ্ঞান আছে? তাহলে কি রূপচর্চা নিয়ে লিখতে চান?

রান্না করতে কি ভালোবাসেন? নানান রকমের নতুন নতুন খাবার বানাতে ভালো লাগে? তাহলে রান্নাবান্নার পদ্ধতি নিয়ে লিখতে পারেন। সাথে যদি খাবার বানানোর ভিডিও দিতে পারেন তাহলে তো কাস্টোমারদের আরো সুবিধে হয়।

আপনি কি চান যে আপনার লিখা সকলে পড়ুক? ইনকাম করতে গেলেও সবার প্রথমে আপনাকে এটাই চাইতে হবে যাতে করে মানুষ আপনার লিখা পড়ে।

আপনি গুগুলে যে কোন টপিক নিয়ে সার্চ করলেই দেখবেন লাখ লাখ লিখা বেরোচ্ছে। এতো লিখা থাকতে মানুষ আপনার লিখা কেন পড়বে? এটাও ভাবাটা খুব জরুরী।

আর এইজন্যই তো আপনাকে উন্নত মানের লিখা লিখতে হবে; যাতে করে মানুষ পড়া শুরু করলে এটাই ভাবতে থাকে এরপর কি লিখা আছে। আর এই ভাবনাই যেন পাঠকদের শেষ লাইন টা অবধি নিয়ে যেতে পারে।

২। মানুষের সমস্যা গুলো কি কি

এমন কিছু লিখুন যা নিয়ে মানুষ চিন্তিত।

বিভিন্ন মানুষের মনে বিভিন্ন প্রশ্ন। এতো প্রশ্নের ক্ষুধা জাগে বলেই তো তারা গুগুলে সার্চ করে।

লিখতে থাকুন সেইসব সমস্যাগুলোর কথা। যেমন ধরুন – আমাদের দেশের এক বড় সমস্যা বেকারত্ব।

এখনো অনেক গ্রামে-গঞ্জে শিশুরা অপুষ্টিতে ভোগে। কি করে কম খরচে এই অপুষ্টি দূর করা যায় তা নিয়ে লিখুন।

এই রকম সমস্যাগুলো দূর করার উপায় এর ব্যাপারে আপনার কাছে যদি কিছু অভিনব আইডিয়া থাকে; তাহলে সেইসব আইডিয়া গুলো লিখুন।

৩। সমস্যাগুলোর উৎপত্তি কিভাবে

ওইসব সমস্যাগুলো কি কারনে আমাদের দেশে এতোখানি প্রবল হয়ে উঠেছে সেইসব কারন গুলো লিখুন।

অন্য দেশেও কি এইসব সমস্যা আছে? যদি না আছে তাহলে কেন নেই? সেইসব কিছু লিখুন।

৪। বিভিন্ন লেখকের লিখা পড়ুন

দেশের মানুষের নানান রকম সমস্যা ও তার সমাধান লিখতে গেলে আপনার দরকার প্রচুর জ্ঞানের।

সেইজন্য আপনাকে অন্য লেখকদের লিখা পড়তে হবে।

সেইসব টপিকের ওপর যদি বই থাকে তাহলে কিছু বই কিনে পড়ুন।

যেমন ধরুন আপনি যদি শিক্ষা সংক্রান্ত কিছু লিখতে চান বা কোন ক্লাসের সায়েন্স সাবজেক্ট নিয়ে লিখতে চান; তাহলে সেই ক্লাসের সায়েন্সের বই কিনুন।

৫। ইন্টারনেট থেকে বিভিন্ন ব্লগার এর লিখা পড়ুন

বই কিনতে যদি না পারেন; তাহলে ইন্টারনেত থেকে বিভিন্ন লেখকের বা ব্লগার এর লিখা পড়ুন। তাদের থেকে জ্ঞান সংগ্রহ করুন কিন্ত কখনোই তা একদম একই করে লিখে দেবেন না।

বরং আপনি অনেক জনের লিখা পড়ুন আর তার সাথে নিজের ভাবনাগুলো মিশিয়ে, লিখাটার মধ্যে নতুন রঙ নিয়ে এসে তা লিপিবদ্ধ করুন আপনার সাইটে।

৬। পাবলিক এর কি কমেন্ট তাও পড়ুন

প্রতিটি ব্লগার এর লিখা পড়ার পর আপনার কিছু প্রশ্ন থাকলে আপনি তা লিখে পাঠাতে পারেন।

অনেক লিখার শেষে আপনি পাঠকদের কমেন্ট দেখতে পাবেন। সেই সব কমেন্টগুলো ও পড়ুন।

৭। এবার লিখা শুরু করুন

বই, ব্লগারদের লিখা, লিখাগুলোর ওপর পাঠকের কি প্রতিক্রিয়া- সেইসব কিছু পড়ার পর আপনি লিখতে শুরু করুন।

এমন কিছু লিখুন যা পড়লে-

  • পাঠক উপকৃত হবে।
  • পাঠকের মনের মধ্যে পরিবর্তন আসবে।
  • পাঠক আনন্দ অনুভব করবে।
  • কিংবা উৎসাহিত হবে।
  • অথবা জ্ঞান অর্জন করবে।
  • পাঠক নতুন কিছু শিখতে পারবে।

৮। লিখতে থাকুন

আপনি যখন তখন যা খুশী লিখতে পারেন। তবে সেইসব লিখা থেকে ইনকাম করবেন ভাবলে ভুল হবে। যখন দেখবেন ইনকাম করতে পারছেন না, আপনিও তখন কষ্ট পাবেন।

ইনকাম এর জন্য লিখতে গেলে ,আপনার লিখা পড়ে মানুষ যাতে উপকৃত হয় তা ভাবতে হবে।

তাই মন থেকে প্রত্যাশা দূর করে লিখতে থাকুন। আর এইজন্য একটা নিজস্ব সাইট খুলুন।

মন থেকে দ্বিধা সংশয় দূর করে লিখতে থাকুন, তবে লিখার সময় নিম্নলিখিত তথ্যগুলো ফলো করুনঃ

এমন কিছু লিখবেন না যা

  • কারো জীবনে ক্ষতি ডেকে আনবে।
  • মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি আনবে।
  • পরিবারের মধ্যে কলহ ডেকে নিয়ে আসবে।
  • ব্যক্তিগত আক্রমন করবেন না
  • ভুল তথ্য দেবেন না।

৯। ধৈর্য ধরুন

একটা সময় ছিল, আমি চলতে চলতে লিখতাম। মানে লিফটে করে কোথাও যাচ্ছি, তখন লিখতাম আর সাথে সাথে পাবলিশও করে দিতাম।

যারা আমার ফলোয়ার ছিল তাদেরেই কয়েকজন শুধু আমার লিখা পড়তো কারন আমিও তাদের লিখা পড়তাম। কিছুটা দেওয়া নেওয়ার মতো।

দিনে ২-৩ টে পোস্ট লিখতাম। একটা নেশার মতো হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু যখন থেকে মনের মধ্যে, ইনকাম করার একটা সুপ্ত বাসনা জেগে উঠলো, তখন থেকে ধৈর্য হারিয়ে ফেললাম।

এইসব নিয়ে অনেক পড়াশুনো করার পর জানলাম যে ইনকাম করতে গেলে লিখাটাও প্রফেশেনেল হতে হবে। কম লিখতে হবে আর কোয়ালিটি বাড়াতে হবে।

ইনকাম করা যদি আপনার একমাত্র উদ্দ্যেশ্য হয়, তাহলে আপনাকে অনেক ধৈর্য ধরতে হবে। প্রচুর লিখতে হবে। আর্টিকেল এর সংখ্যা কম হলে অসুবিধে নেই, কিন্তু কোয়ালিটি কম হলে চলবে না আর ধৈর্য কম হলেও চলবে না।

লিখতে গেলে কি কি স্টেপ্স ফলো করবেন?

  • প্রথমে আপনার পছন্দের ফিল্ডে জ্ঞান সংগ্রহ করুন।
  • ওই ফিল্ডে টপিক ঠিক করুন।
  • সেইসব টপিক নিয়ে নেট এ সার্চ করুন।
  • নেট এ সার্চ করে যেসব আর্টিকেল পেলেন, সেইসবের মধ্যে যতগুলো পারবেন পড়ুন।
  • নিজস্ব কিছু আইডিয়া বার করুন।
  • নতুন কিছু ভাবুন।
  • সব মিশিয়ে নিজের মনের মতো ভাষা দিয়ে লিখা শুরু করুন।

আশা করি, যারা ভেবে পাচ্ছেন না –‘কি নিয়ে লিখবো’; তারা নিশ্চয় এই লিখাটি পড়ে উপকৃত হবেন। তাই পাঠকদের উদ্দ্যেশ্যে আমার অনুরোধ, এই আর্টিকেল টি পড়ে আপনাদের কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন।

সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন, সবাইকে ভালো রাখুন। চলুন, সবাই মিলে একসাথে এক সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলি। এই পৃথিবীর প্রতিটি কোনা ভরে উঠুক ঈশ্বরের আশীর্বাদে!  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাম্প্রতিক পোস্ট