জীবন বাণী- যা আপনার জীবন বদলে দেবে

জীবন বদলে দেওয়ার মতো কিছু বাণী এখানে তুলে ধরলাম। এইসব জীবন বাণী গুলো প্রত্যেকের জীবনেই একটা মোড় নিয়ে আসবে।

শুভ সকালের জীবন বাণী

সূর্যের মতো আলো ছড়াও।
সূর্যের মতো তেজস্বী হও।

সূর্যের মতো তেজস্বী হও। কিন্তু সেই তেজ যেন ভালোর ভালো করে আর খারাপের খারাপ করে যেমনটা সূর্য করে- আমাদের ভিটামিন-ডি দেয় আর জীবাণুদের মেরে ফেলে।

টিউলিপ

ভোরের মতো সতেজ হও যেন তোমার মুখখানা দেখে কিছুক্ষণ আগের ঘন অন্ধকার কেউ বুঝতে না পারে।

টিউলিপ

জুয়েলারির মতো সুন্দর হও। সোনার ওপর যে অত্যাচার তা যেমন জুয়েলারিকে দেখে বোঝা যায় না, ঠিক তেমনি তোমাকে দেখেও তোমার ইতিহাস যেন কেউ বুঝতে না পারে।

টিউলিপ

সম্পর্ক

পিতামাতার সাথে সম্পর্ক মজবুত রাখো তা না হলে পৃথিবী তোমায় চিনতে পারবে না। গাছ থেকে পাতাগুলোকে ভিন্ন করলে কয়েকদিন পরে যেমন সেই পাতা কে চেনা যায় না ঠিক সেইভাবেই পিতামাতা থেকে ভিন্ন সন্তান কে পৃথিবী চিনতে না পারায় তাকে মুল্য দেয় না।  

টিউলিপ

ঐশ্বরিক শক্তি নিয়ে জীবন বাণী

ঐশ্বরিক শক্তি তোমার শরীরের প্রতিটি কোষে বিরাজমান। জাগিয়ে তোল সেই শক্তিকে।
ঐশ্বরিক শক্তি কে জাগিয়ে তোল।

পরিশ্রমের জন্য চাই বিশ্রাম। আর বিশ্রামের জন্য চাই পরিশ্রম।

টিউলিপ

তোমার শরীরের প্রতিটি কোষকে, শিরাকে, ধমনীকে, অস্থিকে, রক্ত প্রবাহকে ধন্যবাদ জানাও। তারা যেভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে শুধুমাত্র তোমাকে সুস্থ রাখার জন্য তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

টিউলিপ

ঈশ্বর কে খোঁজার জন্য তোমার টাকা পয়সার দরকার নেই, কোথাও যাওয়ারও দরকার নেই। ঈশ্বর হলেন এক পজিটিভ শক্তি। যা তোমার শরীরের প্রতিটি কোষে বিরাজমান।

টিউলিপ

পরমানুর মধ্যে যেমন পজিটিভ চার্জ আর নেগেটিভ চার্জ দুইই বিদ্যমান; ঠিক তেমনি মানবশরীরের প্রতিটি কোষে পজিটিভ শক্তি ও নেগেটিভ শক্তি দুইই বিরাজমান।

টিউলিপ

পরমানুর মধ্যে নেগেটিভ চার্জ বহনকারী ইলেক্ট্রনগুলো বাহিরের অরবিটে ঘুরতে থাকে আর পজিটিভ চার্জ থাকে একদম ভেতরে, নিউক্লিয়াসের মধ্যে। ঠিক তেমনি আমাদের শরীরেও পজিটিভ শক্তি থাকে শরীরের ভেতরে-হৃদয়ের অন্তঃস্থলে।

নেগেটিভ শক্তি থাকে আমাদের আশেপাশে। তুমি যদি পজিটিভ শক্তিতে ভরপুর হতে চাও, তাহলে তোমার চারপাশে যে নেগেটিভ শক্তি আছে তা আরও দূরে ঠেলে দাও।

টিউলিপ

তোমাকে সুস্থ রাখার জন্য সূর্য, চন্দ্র, নক্ষত্র, ধরিত্রী, আকাশ,বাতাস, মাটি, জল অবিরত কাজ করে চলেছে। প্রত্যহ সকালে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাও।

টিউলিপ

মানুষ যখন জন্ম নেয়, পুরোপুরি পজিটিভ শক্তির অধিকারীই হয়। ধাতু যেমন শুরুতে নিউট্র্যাল থাকে, পরে অন্য ধাতুর সাথে প্রতিক্রিয়ার ফলে আয়নে পরিনত হয়- কখনো পজিটিভ আয়নে আবার কখনো নেগেটিভ আয়নে।

ঠিক তেমনি মানুষ ও যখন অন্য মানুষের সাথে মিশতে শুরু করে তখন কেউ ভগবানের মতো সুন্দর হয় আবার কেউ শয়তান এর মতো কুৎসিত হয়। 

টিউলিপ

সারা পৃথিবীতে শক্তির খেলা চলছে। দুই বিপরীত শক্তি – পজিটিভ শক্তি এবং নেগেটিভ শক্তি। এই দুই শক্তির খেলায় কখনো পজিটিভ শক্তির জয় আবার কখনো নেগেটিভ শক্তির জয়।

টিউলিপ

শরতের সকালের মতো সুন্দর হও। গ্রীষ্মের দুপুরের মতো কঠোর হও, আর শীতের রাত্রির মতো গভীর হও, জ্ঞানের দিক থেকে।

টিউলিপ

জীবন

পজিটিভ স্বপ্ন দেখো, তাকে ভিজুইলাইজ করো। কল্পনা করো যে তোমার স্বপ্ন সত্যি হয়ে গেছে। আর এইসব প্রত্যহ করতে থাকো যতক্ষণ না তা বাস্তবে পরিনত হচ্ছে।

টিউলিপ

শিক্ষা হল এক পজিটিভ শক্তির সিরাপ। তাই প্রতিদিন তাকে মনের খাবারের মেনুতে রাখো।

টিউলিপ

আমাদের চলার পথে যেমন টারনিং থাকেই, টারনিং না থাকলে অনেক জায়গায় পৌঁছানো যাবে না। ঠিক সেইরকমভাবে, জীবনের চলার পথে টারনিং এলে ঘাবড়ে যেও না।

শুধু দেখে নিও, যে রাস্তায় টারনিং নিলে, সেই রাস্তাটা ভালো তো? যদি সেই রাস্তা ভালো না হয়, আবার একটা টারনিং নিও।

টিউলিপ

রাস্তাতে চলার সময়ে যদি বারে বারে মাত্র কয়েক সেকেন্ড গ্যাপেই টারনিং নাও; তাহলে কোন রাস্তা সম্পর্কেই তোমার জ্ঞান গভীর হবে না আর জীবনে দুর্ঘটনার রিস্কও থেকে যাবে।

ঠিক তেমনি, তুমি যদি জীবনে চলার পথে বারে বারে তোমার লক্ষ্য বদলাও, তুমি কোন লক্ষ্যই পূরণ করতে পারবে না।

টিউলিপ

পাহাড়ি এলাকার রাস্তাগুলো অন্য এলাকার মতো সমতল হয় না। এই উঁচু নিচু রাস্তাগুলো তোমায় এক ভালো মনোরম পরিবেশে নিয়ে যায়। ঠিক তেমনি জীবনে কিছু দুঃখ, কষ্ট থাকলেও সাহসের সঙ্গে এগিয়ে যেও। জয়ী তুমি হবেই।

টিউলিপ

মন নিয়ে জীবন বাণী

অবচেতন মনে যদি কোন দুশ্চিন্তা আসে, সাথে সাথে দায়িত্ব নিয়ে ওই দুশ্চিন্তা যে সত্যি নয় তা বোঝান নিজেকে। ধীরে ধীরে ওই নতুন পজিটিভ চিন্তার সাথে অভ্যস্ত হয়ে যাবে আপনার অবচেতন মন।

টিউলিপ

যা আপনি ভাবতে চান না, তাও মনের মধ্যে উঁকি মারে। আর এইসব হতে থাকে আপনার অবচেতন মনে জমে থাকা স্মৃতিগুলোর জন্য। তাই, আপনি অবচেতন মনের খেয়াল রাখুন, আর অবচেতন মন আপনার সচেতন মনের খেয়াল রাখবে।

টিউলিপ

কোন ব্যক্তিই খারাপ না। সবই আপেক্ষিক। যে তোমার কাছে খারাপ, সে হয়তো অন্যদের কাছে ভালো। তাই বিচার করাটা সহজ না। আর এইজন্যই খুব সাবধানে ভেবে চিন্তে অন্যদের নিয়ে বিচার করো।

টিউলিপ

দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক করো। দেখবে- জীবনের অর্ধেক সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে।

টিউলিপ

তোমার সবচে কাছে যে আছে, সবার আগে তার যত্ন নিও। তোমার সবচে কাছের মানুষটি হল তুমি স্বয়ং।

টিউলিপ

প্রকৃত সুখ

জীবনে যদি সুখী হতে চাও তাহলে তিনটে জিনিষের প্রয়োজন- অর্থ, স্বাস্থ্য, এবং সম্পর্ক।

টিউলিপ

অর্থ, স্বাস্থ্য, এবং সম্পর্ক- এই তিনটে জিনিষের মধ্যে স্বাস্থ্য আর সম্পর্ক যত সুন্দর হবে ততই ভালো। অর্থের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য নয়। অর্থ প্রয়োজনের চেয়ে বেশী হলে সেই অত্যধিক জমে থাকা অর্থ বিপদ ডেকে আনে।

টিউলিপ

কোনোদিন যদি তোমার ভাণ্ডারে অত্যধিক অর্থ জমায়িত হয়ে থাকে, তাহলে খাঁচার মধ্যে বেঁধে রেখো না, তাকে উড়তে দিও। অর্থ বেশী হলে, অর্থের প্রবাহ বাড়িয়ে দিও।

টিউলিপ

খরচ করাটা অপরাধ নয়। বরং প্রচুর অর্থ জমিয়ে রাখাটা আমার চোখে অপরাধ। তুমি যখন খরচ করো, তুমি তোমার অর্থকে বইতে দাও। এর ফলে সেই অর্থ অন্যজনের হাতে পৌছায়।

টিউলিপ

এমনভাবে খরচ করো যেন আগামী কালের জন্য তোমাকে ভাবতে না হয়। আগামীকালের জন্য অর্থ সঞ্চয় কিন্তু অপরাধ নয়।

অর্থ যখন এতোটাই অতিরিক্ত হয়ে যায় যে বংশের পর বংশকে ভাবতে হয় না; চিন্তা করতে হয় না ভবিষ্যতের জন্য, পরিশ্রম করতে হয় না চাকরির জন্য; এইরকম হারে অর্থ জমানো ঘোরতর অপরাধ।

টিউলিপ

তোমার পরিবারের দেখাশুনো করাটা তোমার কর্তব্য। কিন্তু প্রজন্মের পর প্রজন্ম এর দায়িত্ব নেওয়াটা তোমার কর্তব্য নয়।  

টিউলিপ

স্বয়ং ঈশ্বর এই যখন সবাইকে সম পরিমান খুশীতে রাখতে পারেন নি, তখন আপনি কি করে সকলকে ভালো রাখতে সক্ষম হবেন? তাই সকলকে সুখে রাখার দায়িত্ব নেওয়া টা নিছকই বোকামি ছাড়া কিছু নয়।

টিউলিপ

আশা করি- এই জীবন বাণী গুলো আপনার / তোমাদের জীবন বদলে দিতে সক্ষম। এমনই সুন্দর জীবন বাণী আরও পড়তে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন এই সাইট টি।

সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন, সবাইকে ভালো রাখুন। চলুন, সবাই মিলে একসাথে এক সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলি। এই পৃথিবীর প্রতিটি কোনা ভরে উঠুক ঈশ্বরের আশীর্বাদে!  

2 thoughts on “জীবন বাণী- যা আপনার জীবন বদলে দেবে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাম্প্রতিক পোস্ট