নিজেকে নিয়ে উক্তি ( Quotes on Self)

উক্তি

আমার মনে হয় প্রতিটি মানুষেরই “নিজেকে নিয়ে উক্তি” লিখা উচিত। প্রতিটি মানুষের মধ্যেই কিছু ভালো গুন আছে আবার কিছু খারাপ গুনও আছে। যখন তুমি নিজেকে নিয়ে কিছু উক্তি লিখতে চেষ্টা করবে, তুমি এক অদ্ভুত রকমের পজিটিভ শক্তি অর্জন করবে। কারন সেই মুহূর্তে তুমি শুধু পজিটিভ দিক গুলো খোঁজার চেষ্টা করবে।

আমি নিশ্চিত যে তোমরা প্রত্যেকেই প্রচুর উক্তি লিখতে পারবে। আর এখানে আমি আমাকে নিয়ে কিছু উক্তি লিখবো। উদ্দ্যেশ্য হল এই যে যাতে করে এই ইউনিভার্স এর দেওয়া পজিটিভগুন গুলো এই বিশ্ব মাঝারে ছড়িয়ে দিতে পারি।

তাহলে চেষ্টা করা যাক নিজের পজিটিভ শক্তি কে খুঁজে সেগুলো উক্তির মাধ্যমে তোমাদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে।

শুরু করার আগে বলে নিই কিছু কথা আমাকে নিয়ে। আমি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, ২০০৫ সালে NIT,Durgapur থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রী অর্জন করি। ২০০৫ থেকে ২০১৪ অবধি বিভিন্ন কোম্পানি তে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকুরী করি। ২০১৬ সালে Jadavpur University থেকে মাস্টার ডিগ্রী অর্জন করি।  তারপরে এক প্রাইভেট ইঞ্জিনিয়ার কলেজে আমি Assistant Professor হিসেবে চাকুরী করছি। মেয়েকে সময় দেওয়ার জন্যই Teaching Profession এ সুইচ করি।

আমি যে ধরনের চাকুরী ২০১৪ সালে করতাম, তাতে প্রায়ই রাজ্যের বাইরে মিটিং এ যেতে হত। আর মা হয়ে মেয়ে কে একলা ফেলে বাড়ীর বাইরে থাকা টা আমার পক্ষে খুবই কষ্টকর হত। কিন্তু আমি আমার এই সব ধরনের সিদ্ধান্ত ,আর এই দীর্ঘ জীবন থেকে যা যা শিখেছি তারই প্রতিফলন করবো নিজেকে নিয়ে উক্তিগুলোর মাধ্যমে।

বর্তমানে চাকুরীর সাথে সাথে আমি সাইকলজি তে ডিপ্লোমা করছি। ইতিমধ্যেই আমি “Teenage and Marital Counseling Course” টি কমপ্লিট করে ফেলেছি। এছাড়াও সম্প্রতি আমি জীবনের নানান রকমের সমস্যা এর সমাধান দিতে কাউন্সিলিং শুরু করেছি। তোমরা Contact এর পেজ এ এই সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য পেয়ে যাবে।

তাহলে আর সময় নষ্ট না করে শুরু করা যাক সেইসব মুল্যবান উক্তিগুলো। তবে শুরু করার আগে একটা বিশেষ কথা বলে নেওয়া যাক। উক্তিগুলোর শেষে আমি তোমাদের গাইড করবো কিভাবে তোমরা তোমাদের সম্পর্কেও কিছু উক্তি বানাবে।  

নিজেকে নিয়ে উক্তি

জীবন নিয়ে উক্তি

জীবনে ভুল কিছু সিদ্ধান্ত নিলেও হতাশ হবে না। কারন এই ভুল সিদ্ধান্ত গুলোর জন্যই হয়তো তুমি অনেক কিছু শিখতে পারবে।

টিউলিপ

জীবনে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েও তুমি যদি জীবন কে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারো, তাহলে জানবে সেই ভুলের গুরুত্ত্ব আছে।

টিউলিপ

জীবনে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে আফসোস করে জীবন কে থামিয়ে রাখা টা বোকামি।

টিউলিপ

সবার জীবনেই টাকা রোজগার করা একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কিন্তু এই গুরুত্বপূর্ণ কাজ কে অত্যধিক গুরুত্ত্ব দিতে গিয়ে নিজের সাথে কিছু টা সময় কাটাতে ভুলে যেও না যেন।

টিউলিপ

মনে রেখো –তোমার শরীর এই তোমার আসল ঘর। ওই রাজমহল বা অট্টালিকা এর সাথে তোমার মনের কোন সম্পর্ক নেই। তাই আসল ঘরের যত্ন নিও। তাকে পরিষ্কার রাখো, রোগমুক্ত রাখো।

টিউলিপ

তুমি তো শুধুই এক পজিটিভ শক্তি। যাকে ঘিরে আছে তোমার মন আর শরীর। ওই রাজমহল বা অট্টালিকা এর সাথে তোমার অনেকখানি দূরত্ব।

টিউলিপ

শরীর কে ভালো রেখো, আর মন কে নিয়ন্ত্রনে রেখো। মন আর শরীর বাদে বাকী আর অন্য সব ম্যাটিরিয়েলিস্টিক জিনিষ কে বেশী গুরুত্ত্ব দিও না।

টিউলিপ

জীবনে যদি কিছু ভুল না করে থাকো, তাহলে তুমি সঠিক পথে এগোচ্ছ না। জীবনের সঠিক পথগুলো খুব কঠিন। সেই কঠিন পথে আছাড় খেতে খেতে তোমার মনে হতে পারে যে তুমি ভুল পথে হাটছ। এরকম মনে হলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করো না, এগিয়ে যাও।

টিউলিপ

নিজেকে নিয়ে উক্তি

এখানে আমি একদম নিজেকে নিয়ে কিছু বিশেষত্ব তুলে ধরলাম।

আমি সবার পরামর্শ নিই ঠিকই। কিন্তু শেষে সব পরামর্শ গুলো বিচার বিবেচনা করে যেটা আমার ভালো লাগে আমি সেটাই করি।

টিউলিপ

আমি কখনই নিজের স্বামী কে বেঁধে রাখি না। ও ওর মতো ভাবে থাকে, আমি আমার মতো। আর এখানেই আমাদের স্বামীস্ত্রীর সম্পর্ক আরও সজীব হয়ে ওঠে।

টিউলিপ

আমার স্বামী আমাকে অবাধ স্বাধীনতা দিয়েছে। আমি সেই স্বাধীনতার অপব্যবহার করি না। সবসময় সেই স্বাধীনতাকে মর্যাদা দেওয়ার চেষ্টা করি।

টিউলিপ

ইচ্ছে ছিল PHD করবো। কিন্তু পরিস্থিতি তা করতে দিল না। তাও ইচ্ছে করলে পারতাম, কিন্তু ইচ্ছে করলো না। কারন মেয়ের সাথে বড্ড বেশী রাগ করে ফেলছিলাম।

টিউলিপ

মাঝে মাঝে নিজের আপনজনের কথা ভেবে কিছু স্বপ্ন কে বিসর্জনও দিয়েছি।

টিউলিপ

আমি অন্যকে বেশ ভালো টিপস দিতে পারি। কিন্তু নিজের ভবিষ্যৎ কে কোন ঠিকানা দেবো, বুঝতে পারি না।

টিউলিপ

লিখা হল আমার সুখের চাবিকাঠি। এ এমন এক অস্ত্র যা দিয়ে আমি সমস্ত নেগেটিভ শক্তি কে পজিটিভ শক্তি তে কনভার্ট করতে পারি।

টিউলিপ

হৃদয় যেন বলে ওঠে- “লিখো, আরও লিখো, দেশের সকল মানুষ কে চমকে দাও। এমন লিখো যেন মানুষ তোমার একই লিখা বারে বারে পড়তে থাকে আর আরাম অনুভব করে”।

টিউলিপ

হ্রদয় বলে-“ PHD পরিশ্রমের জোরে অনেকেই করতে পারে, কিন্তু কয়জন অন্যের সমস্যার সমাধান দিতে পারে বা দেওয়ার চিন্তা করে থাকে?”

টিউলিপ

তোমাদের যে কোন সমস্যায় আমি আছি তোমাদের সাথে, তোমাদের পাশে। পড়াশুনোর টিপস থেকে শুরু করে চাকুরী বা বিবাহ জনিত সমস্যা এর অভিনব টিপস দেবো তোমাদের। কন্টাক্ট করো -৬২৯১১৫৭৯০২ তে।

টিউলিপ

বাকীদের মতো আমিও মাঝে মাঝে হতাশ হয়ে পড়ি। নেগেটিভ শক্তি আমাকে জব্দ করার চেষ্টা করে। কিন্তু তাহলে আমি বাকীদের মোটিভেট করি কিভাবে? এই প্রশ্নই জাগছে তো মনে? বাকীদের সাথে আমার পার্থক্য এই যে আমি নেগেটিভ শক্তি কে পজিটিভ শক্তি তে কনভার্ট করতে পারি। হতাশ হয়ে পড়লেও আশার আলো আমার চোখে পড়ে।

টিউলিপ

যখন তুমি পড়া বুঝতে পারো না, তখন তুমি তোমার চেয়ে ছোট বাচ্চাদের টিউশেন পড়াও, এতে তোমার কনসেপ্ট ক্লিয়ার হয়ে যাবে। কিছুদিন পরে দেখবে তুমি তোমার পড়াটাও বুঝতে পারছ।  

টিউলিপ

জীবনের রহস্য

যে ছেলেটা মিষ্টির দোকানে কাজ করে, মিষ্টি নিয়ে এতো নাড়াচাড়া করে, সেই ছেলেটার মুখে কোন মিষ্টি জোটে না। ঠিক সেইরকমভাবে, যে সকল্ কে মোটিভেট করে মাঝে মাঝে সেও মোটিভেশন খোঁজে।

টিউলিপ

জীবন টা সবার কাছেই শেখার জন্য। যার বয়স ৮০ সেও শেখে, আবার যার বয়স ৬ কিম্বা ১২ সেও শেখে।

টিউলিপ

জীবন হল একটা ভ্রমণকাহিনী। একই রকম জীবন কিন্তু বিভিন্ন রকম স্বাদ, বিভিন্ন রকম পরিস্থিতি।

টিউলিপ

আমি আমার খাতায় আমার জীবনের ভ্রমণকাহিনী লিখি। এর সাথে একদম মিলিয়ে চলতে হবে তার কোন মানে নেই।

টিউলিপ

কোনোদিন যদি তুমি লিখা কে পেশা করো, অন্য কারো লিখা থেকে কখনো কপি করো না। এতে তোমার জীবন কাহিনীর গুরুত্ত্ব কমে যাবে। প্রতিটি জীবনের কাহিনীর বিশেষ অবদান আছে এই বিশাল ইউনিভার্সে।

টিউলিপ

তুমি যার থেকে কপি করে লিখে নাম পেতে চাইছ, হয়তো তার জীবনে পরিস্থিতি গুলো ভিন্ন ছিল, জটিল ছিল। তাই সে বেশিদূর এগোতে পারে নি। ভালো ক্যারিয়ার গড়তে পারে নি। তাই তাকে যদি কপি করো, তোমার জীবনের উন্নতিও লঘু হয়ে যেতে পারে।

টিউলিপ

কাউকে কপি করো না। কিন্তু সবার ভালো দিক গুলো গ্রহন করতে শেখো। তারপরে সেই ভালো গুনে সমৃদ্ধ জীবন এর ভ্রমণকাহিনী তোমার কলমে তোমার খাতায় তোমার মতো করে লিখো। সেই কাহিনীতে যেন তুমি যা যা পরিস্থিতি ফেস করেছো, কিম্বা তুমি যা যা চ্যালেঞ্জ এর সম্মুখীন হয়েছ সেইসব কিছু খুব সুন্দরভাবে ফুটে উঠে।

টিউলিপ

 জীবন হল এক কাহিনী, এক গল্প। তোমার আমার কাছে যা সত্যি, হাজার বছর পরে কিছু মানুষের কাছে তা গল্প মনে হবে। তোমরা সকলেই এই জীবন কে গল্পের মতো করে ভেবে সেই গল্পের মধ্যে লুকিয়ে থাকা কিছু বানী কে তুলে ধরার চেষ্টা করো। আর এই চেষ্টার মধ্যেই তুমি খুঁজে পাবে তোমার পজিটিভ দিক গুলো, খুঁজে পাবে বেঁচে থাকার স্বাদ, খুঁজে পাবে জীবনের মানে।

টিউলিপ

যে কোন রকম সমস্যা জানাতে ম্যাসেজ পাঠাও- মনের জানালা টিউলিপ ( ৬২৯১১৫৭৯০২) কে যেখানে মনের সব কথা খুলে বলতে পারবে।

আশা করি “নিজেকে নিয়ে উক্তি” গুলো তোমাদের সকলের খুব ভালো লেগেছে। তাও তোমরা যদি সেই ভালো লাগার কথা কমেন্ট বক্সে লিখে পাঠাও, আমি খুবই খুশী হবো। আর নতুন নতুন লিখা তোমাদের কাছে নিয়ে আসতে পারবো। সুস্থ থাকো, ভালো থাকো, সবাইকে ভালো রাখো । চলো, সবাই মিলে একসাথে এক সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলি। এই পৃথিবীর প্রতিটি কোনা ভরে উঠুক ঈশ্বরের আশীর্বাদে!  

Leave a Reply

Your email address will not be published.

সাম্প্রতিক পোস্ট